সরকারি ইসলামপুর কলেজের জন্ম কথা

সরকারি ইসলামপুর কলেজ।১৯৭০ সালে যার প্রতিষ্ঠা হয়েছিল ইসলামপুর কলেজ নামে। তৎকালিন জামালপুর মহকুমার শিক্ষা সহ যোগাযোগ ব্যবস্থাহীন পশ্চাৎপদ থানা ইসলামপুর। উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বলতে কয়েকটি উচ্চ বিদ্যালয় ও মাদরাসা। এ অ লের কতিপয় মধ্যবিত্ত পরিবার ছাড়া উচ্চ শিক্ষার স্বপ্ন অলীক কল্পনা। দু'চার জন ব্যতিক্রম ছাড়া বেশির ভাগ নিম্ন বিত্তের মানুষের সন্তানদের উচ্চ শিক্ষা গ্রহন করার বিষয়টি ভাবাই যেতো না। মহকুমা সদরের একমাত্র উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আশেক মাহমুদ কলেজ ছাড়া আর এতদ্ব লে আর কোন কলেজ ছিল না।তাও আবার বেসরকারি। সেই প্রেক্ষাপটে ইসলামপুরের কতিপয় মহানুভব বিদ্যানুরাগী ব্যক্তি বর্গ এ অ লে কলেজ প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন দেখেন। আর তাদের স্বপ্ন পূরনের প্রবল আকাঙ্খা,ইচ্ছা শক্তি এবং আন্তরিক প্রচেষ্টাতেই অত্র প্রতিষ্ঠানের জন্ম হয়। সেই সব মহানুভব বিদ্যানুরাগী ও আলোকিত মানুষ গুলো এখন জীবিত নেই কিন্তু অত্র প্রতিষ্ঠানের জন্মের ইতিহাসের সাথে তাদের অবদানের কথা বর্তমান ও ভবিষ্যত প্রজন্মকে গভীর কৃতজ্ঞতা পাশে অনন্তকাল বেঁধে রাখবে । অত্র অ লের সকল শ্রেনী পেশার মানুষের সমর্থন সহযোগিতা প্রতিষ্ঠানটি গড়ে ওঠার ক্ষেত্রে অনন্য ভূমিকা রেখেছে। যাদের মূখ্য ভূমিকা অত্র প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে উল্লেযোগ্য তারা হলেন প্রয়াত মাননীয় ভূমি প্রতি মন্ত্রী আলহাজ রাশেদ মোশারফ, প্রয়াত আলহাজ হবিবর রহমান খান,(জমি দাতা) প্রয়াত শাহ মাহমুদ পাহলোয়ান (ঘটি পাহলোয়ান),প্রয়াত জয়নাল আবেদিন খান লোহানী, স্বঁ বাবু সুশীল চন্দ্র উপাধ্যায় (দুরমুঠ),প্রয়াত সার্কেল অফিসার (রাজস্ব) ইদ্রিস আলী, প্রয়াত ডা: জহুরুল হক, প্রয়াত ডা:খোরশেদুজ্জামান (মি¯্রি মিয়া) প্রয়াত মোফাজ্জল হক শাহ ফকির,স্বঁ বাবু পরিমল সেন, প্রয়াত ইলাম উদ্দিন সরকার (জমি দাতা) প্রয়াত নিজাম উদ্দিন আহমেদ (জমি দাতা) প্রয়াত জামাল উদ্দিন হাসমী (জমি দাতা) প্রয়াত গফুর শেখ(জমি দাতা) স্বঁ সুরেন্দ্র চন্দ্র দাস(জমিদাতা), প্রয়াত আছিয়া বেগম (জমিদাতা) প্রমুখ। ১৯৭০ সালে উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেনীর অনুমোদন নিয়ে বর্তমান সরকারি নেকজাহান পাইলট মডেল হাই স্কুলের ক্যাম্পাসে প্রতিষ্ঠানের যাত্রা শুরু হয়। ১৯৭১ সালে স্থানান্তরিত হয় নিজ ক্যাম্পাসের (বর্তমান ক্যাম্পাস)১০০ হাত চৌ চালা টিনের ঘরে। তৎপর১৯৭২ সালে স্বাধীন বাংলাদেশের জন্মের পর এর অবকাঠামো ও একাডেমিক উন্নয়নে নতুন মাত্রা যুক্ত হয়। ১৯৭৪ সালে ডিগ্রী কোর্সে যুক্ত হয় এবং১৯৯৬ সালে বি,এস,সি কোর্স চালু করার মধ্য দিয়ে এটি পূর্নাঙ্গ ডিগ্রী কলেজে পরিণত হয়। অত:পর সুদীর্ঘ সময় পেরিয়ে ২০১১ সালে মাননীয় সংসদ সদস্য কর্মবীর জননেতা জনাব আলহাজ ফরিদুল হক খান সাহেবের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব আব্দুল বারী সাহেবের সভাপতিত্বে পরিচালনা পরিষদের কালে ২টি বিষয়ে স্নাতক (সম্মান) কোর্সে যুক্ত হয়। তৎপরবর্তী মাননীয় সাংসদ জনাব ফরিদুল হক খান এর সভাপিত্বে পরিচালনা পরিষদের সময়কালে ধারাবাহিকভাবে সর্বমোট ১২টি বিষয়ে স্নাতক (সম্মান) সহ ৪টি বিষয়ে স্নাতকোত্তর কোর্স যুক্ত হয়। সর্বশেষ জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা সফল রাষ্ট্রনায়ক মানবতার জননী দেশরতœ মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার নের্তৃত্বে দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাওয়া দেশে সরকারি হাইস্কুল এবং কলেজ বিহীন প্রতিটি উপজেলায় একটি হাইস্কুল এবং একটি কলেজ জাতীয়করন নীতিমালায় অত্র প্রতিষ্ঠানটি জাতীয় করন হওয়ার মধ্য দিয়ে ইসলামপুর বাসির প্রিয় ইসলামপুর কলেজের সাথে "সরকারি" শব্দ যোগে এর নাম হয়েছে "সরকারি ইসলামপুর কলেজ"।